176481

নতুন মাদরাসাকে বেফাকভূক্ত করবেন যেভাবে

রকিব মুহাম্মাদ ।।

বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ- বাংলাদেশের কওমি মাদরাসার প্রাচীন শিক্ষাবোর্ড। বেফাকের অধীনে থাকা মাদরাসাগুলোর প্রতি বছর কেন্দ্রীয় পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। কেন্দ্রীয় পরীক্ষা গ্রহণের নিমিত্ত মাদরাসাকে বেফাক-এর অন্তর্ভূক্ত হতে হয়।

কিছু নীতিমালা ও শর্ত অনুসরণের মাধ্যমে  মকতব, প্রাইমারি, কিন্ডার গার্টেন, হিফজ, ইলমুত তাজবিদ ওয়াল কিরায়াত, শর্ট কোর্স, দরসে নেজামি মাদরাসা পুরুষ এবং মহিলা মাদরাসা বেফাকভুক্ত হতে পারে।

বেফাকভুক্ক হওয়ার জন্য প্রথমেই ৩টি নিয়ম অনুসরণ করা আবশ্যক। নিচে সেসব উল্লেখ করা হলো-

১. অন্তর্ভুক্তির আবেদনের তারিখ পর্যন্ত মাদরাসার বয়স কমপক্ষে এক বছর হতে হবে।

২. বেফাক-এর উদ্দেশ্য, লক্ষ্য, চিন্তা-চেতনা, ধ্যান-ধারণা, আদর্শ এবং দায়িত্ব-কর্তব্যের সাথে মাদরাসা-এর উদ্দেশ্য, লক্ষ্য, চিন্তা-চেতনা, ধ্যান-ধারণা, আকিদা-বিশ্বাস, আমল-আখলাক, আদর্শ, ঐতিহ্য ও কার্যাবলীর সাথে মিল থাকতে হবে।

৩. মাদরাসা পরিচালনার নিমিত্তে কমিটি থাকতে হবে। মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত (১০ম মানের মাদরাসা পর্যন্ত) মাদরাসার জন্য একটি মাত্র মজলিসে শূরা থাকতে হবে। আর উচ্চস্তরের মাদরাসার জন্য দু’টি কমিটি শূরা ও আমেলা থাকতে হবে।

এছাড়াও বেফাক কর্তৃক দেওয়া কতিপয় নীতিমালার আওতায় একটি কমিটি গঠন করতে হবে। নীতিমালাগুলো নিচে উল্লেখ করা হল-

১. বেফাক কর্তৃক প্রদত্ত দস্তুরুল মাদারিস-এ বর্ণিত বিধি-বিধান-এর ভিত্তিতে কমিটি গঠন করে তা বেফাক দফতরে জমা দিতে হবে।

২. বেফাক থেকে উপরোক্ত কমিটি মঞ্জুর করিয়ে আনতে হবে।

৩. মাদরাসার জন্য একটি দস্তুর (গঠনতন্ত্র) থাকতে হবে। বেফাক কর্তৃক প্রণীত দস্তুরুল মাদারিস-এর আঙ্গীকে এটি প্রণয়ন করে বেফাক থেকে তা মঞ্জুর করিয়ে নিতে হবে।

৪. বেফাক-এর অন্তর্ভুক্তির জন্য মাদরাসার শূরার/আমেলার সিদ্ধান্ত থাকতে হবে এবং সিদ্ধান্তের রেজুলেশনের কপি বেফাকভুক্তির আবেদনের সঙ্গে জমা দিতে হবে।

৫. বেফাক কর্তৃক প্রদত্ত নেছাবনামা, পাঠদান পদ্ধতি, পরীক্ষা গ্রহণ পদ্ধতি, তা‘লীম তারবিয়াত দান পদ্ধতি এবং মাকাদীরে আসবাক অনুসরণ করতে হবে। বেফাক কর্তৃক নির্ধারিত পাঠ্য বই/কিতাব পাঠ্য করতে হবে।

৬. দরখাস্ত দিয়ে ইলহাক সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংগ্রহ করতে হবে। কাগজপত্র বাবত নির্ধারিত ফি জমা দিয়ে অফিস থেকে দু’ধরনের কাগজপত্র সংগ্রহ করতে হবে।

যে সব মাদরাসা বেফাক-এর অন্তর্ভূক্ত করা যাবে – 

১. আদর্শ ফুরকানিয়া মাদরাসা, (কওমী মকতব, নূরানী ও নাদিয়া মকতব)
২. প্রাইমারী (ইবতিদাইয়্যাহ) মাদরাসা
৩. কওমী কিন্ডার গার্টেন মাদরাসা

৪. তাহফীযুল কুরআন (হাফেযিয়া) মাদরাসা
৫. শর্ট কোর্সের মাদরাসা
৬. ইলমুত তাজবীদ ওয়াল কিরায়াত-এর মাদরাসা

৭. দরসে নেযামী মাদরাসা (পুরুষ) যে কোন স্তরের
৮. বালিকা ও মহিলা মাদরাসা যে কোন স্তরের

এছাড়াও কিছু নিয়ম রয়েছে। বিস্তরিত জানতে এবং অনলাইনে নিবন্ধন ফরম পেতে নিচের লিংকে ক্লিক করুন –  নতুন মাদরাসাকে যেভাবে বেফাকভূক্ত করবেন

আরএম/

ad

পাঠকের মতামত

Comments are closed.