178397

নাগরিকত্ব আইন: মুর্শিদাবাদ, উত্তর ২৪ পরগনা, মালদায় অবরোধ-বিক্ষোভ

আওয়ার ইসলাম: ভারতে নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে সকাল থেকেই ট্রেন আটকে ও সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ আন্দোলন চলছে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে। রেল অবরোধের পর একাধিক স্টেশনে দাঁড়িয়ে আছে বেশ কয়েকটি দূরপাল্লার ট্রেন। ৬ নম্বর জাতীয় সড়ক সহ বিভিন্ন রাস্তায় অররোধ আন্দোলন চলছে।

আজ শনিবার সকালে শিয়ালদহ-হাসনাবাদ শাখার হাড়োয়া স্টেশনে রেল লাইনে অবরোধ করেন স্থানীয়রা। বিক্ষোভ দেখা যায়, হাসনাবাদসহ আরও বেশ কয়েকটি স্টেশনে। অবরোধের জেরে দীর্ঘক্ষণ ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কেও টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ বিক্ষোভ চলছে। আমডাঙার রোফিপুর, বিডিও অফিস মোড়, রায়পুর, আওয়ালসিদ্ধি, রংমহল ও কাচারি প্রভৃতি জায়গায় রাস্তা অবরোধ করা হয়। টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভও করছে অবরোধকারীরা।

সকাল থেকে মুর্শিদাবাদ জেলার বিভিন্ন প্রান্তেও চলছে অবরোধ। জঙ্গিপুর স্টেশনে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে রয়েছে ট্রেন। উত্তপ্ত হাওড়ার সাঁতরাগাছিতে ৬টি বাসে আগুন ধরিয়ে দেয় বিক্ষোভকারীরা। দমকল আগুন নেভাতে গেলে ঢিল ছোড়া হয় বলে আভিযোগ উঠেছে। রেলসুত্রে জানা যায়, আন্দুল, সাঁকরাইল, নলপুর, বাউরিয়া স্টেশনে সকাল সাড়ে ১০টা থেকে রেল পথেও অবরোধ চলছে। সাঁতরাগাছিগামী রাস্তা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

নিজেদের হাতে আইন তুলে না নেওয়ার জন্য বিক্ষোভকারীদের পরামর্শ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। একই আবেদন জানিয়েছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। রাজ্য সরকার বাংলায় এনআরসি লাগু হবে না বলেই শুক্রবারই ফের স্পষ্ট করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি-র প্রতিবাদে রবিবার থেকে বুধবার লাগাতার আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করেছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল।

এদিকে, জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ (জেএইচ) শুক্রবার রাজ্যসভায় পাস হওয়া নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে ভারতজুড়ে প্রায় দুই হাজার শহরে বিক্ষোভ করেছে। সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মাহমুদ মাদানী নয়াদিল্লিতে একটি প্রতিবাদ বিক্ষোভের নেতৃত্ব দেন।

যেসব শহরগুলি বিতর্কিত আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছিল তার মধ্যে দিল্লি, মুম্বাই, দেওবন্দ, জয়পুর বেঙ্গালুরু, হায়দরাবাদ, বিজয়ওয়াদা, নলগুন্ডা, নাগপুর, কলকাতা, ভোপাল, আহমেদাবাদ, পুনে, সুরত, চণ্ডীগড়, বারানসি, কানপুর, লখনৌ, গোয়ালিয়র এবং অন্যান্য অন্তর্ভুক্ত ছিল।

বিক্ষোভকারীরা প্রতিবাদ মিছিলে বিজেপি বিরোধী স্লোগান দিচ্ছিলেন এবং “সংবিধান সংরক্ষণ করুন, সিএবি প্রত্যাহার করুন, সিএবি মানুষকে ধর্মীয় ভিত্তিতে বিভক্ত করবে” এই জাতীয় স্লোগানসহ প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করছিল।

-এটি

ad

পাঠকের মতামত

Comments are closed.