124789

ইসি সচিব ও ডিএমপি কমিশনারের বিরুদ্ধে বিএনপির শাস্তির দাবি

আওয়ার ইসলাম: বিএনপি শাস্তি দাবি করেছে ইসি সচিব ও ডিএমপি কমিশনারের বিরুদ্ধে।

বিএনপির নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মনোনয়ন বিতরণকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ ও গাড়ি পোড়ানোর ঘটনায় নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ ও ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়াসহ সংশ্লিষ্টদের বিচার দাবি করেছে বিএনপি।

এছাড়াও ইসির যুগ্ম সচিব ফরহাদ আহম্মদ খান এবং ডিএমপির সংশ্লিষ্ট জোনের উপপুলিশ কমিশনারের বিচার দাবি করেছে দলটি।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে এই দাবি জানিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদাকে দলের পক্ষ থেকে চিঠি দেয় বিএনপি।

এদিন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলালের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল নির্বাচন কমিশনে যান। প্রতিনিধি দল বিএনপি মহাসচিব ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরিত চিঠি প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) এবং নির্বাচন কমিশন সচিবের কাছে দেয়।

নির্বাচন কমিশন থেকে আচরণবিধি পালন সংক্রান্ত চিঠির পরই এই ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করেছে বিএনপি। ইসি ব্যবস্থা না নিলে দলটি আইনের আশ্রয় নেবে বলেও হুঁশিয়ার করেছে।

চিঠিতে উল্লেখ করা হয়, নির্বাচন কমিশন তড়িঘড়ি করে ৮ নভেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে। সরকারি দল ৯ নভেম্বর থেকে ১২ নভেম্বর পর্যন্ত দলীয় কার্যালয়ের সামনে রাস্তা বন্ধ করে যানজট সৃষ্টির মাধ্যমে জন দুর্ভোগ সৃষ্টি করে দলীয় মনোনয়ন বিতরণ করে।

মনোনয়ন প্রত্যাশীরা ঢাকঢোল পিটিয়ে মোটরসাইকেল, গাড়ি, পিকআপসহ বিভিন্ন স্থান থেকে ধানমণ্ডির মতো জনাকীর্ণ এলাকায় রাস্তা বন্ধ করে মনোনয়ন সংগ্রহ করে। এছাড়া নিজেদের প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষে দুইজন নিহত হয়। এ সময় পুলিশি তৎপরতা দৃশ্যমান ছিল না।

এমনকি হতাহতের ঘটনায় মামলা কিংবা তাদের কোনো নেতাকর্মী গ্রেফতার হয়েছে এমন সংবাদও গণমাধ্যমে আসেনি।

বিএনপি কার্যালয়ের সামনে স্বতঃস্ফূর্ত জনগণের ঢল দেখে নির্বাচন কমিশন সচিব ও ডিএমপি কমিশনারের গায়ে জ্বালা ধরে, কমিশন নড়েচড়ে বসে। কথিত আচরণবিধির খড়গ নেমে আসে বিএনপির ওপর।

ইসি সচিব গণমাধ্যমে আচরণবিধি প্রতিপালনের কঠোর হুংকার দিয়ে, এটাকে আচরণবিধির লঙ্ঘন বলে চিহ্নিত করে। আমরা মনে করি কমিশনের এ পক্ষপাতমূলক বিধিমালার ব্যাখ্যা যথোপযুক্ত নয়।

চিঠিতে প্রশ্ন রাখা হয়, গত ১২-১৩ নভেম্বর নজিরবিহীন জনসমাগম সত্ত্বেও এ ধরনের ঘটনা ঘটেনি, তাহলে কেন ১৪ নভেম্বর এ ধরনের সন্ত্রাসী ঘটনা সংঘটিত হলো?

চিঠিতে আরও উল্লেখ করা হয়, ১৩ নভেম্বর নির্বাচন কমিশনের আচরণবিধি প্রতিপালনের নির্দেশনা নেতাকর্মী-সমর্থকসহ জনগণের অংশগ্রহণকে বাধাগ্রস্ত করেছে।নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের দেওয়া বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্য এবং ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামানের বক্তব্যে ঘটনা সংঘটনের ইন্ধনের সুস্পষ্ট ইঙ্গিত পাওয়া যায়।

ad

পাঠকের মতামত

One response to “কিশোরগঞ্জে বাসের ধাক্কায় নিহত ২, আহত ৪”

  1. J’achète du Kamagra dans des sex-shops souvent tard le soir, quand je suis avec une fille et que je sais que je vais avoir du mal à être vigoureux à cause de la coke. buy viagra online The kinetics of changes in blood plasma glucose concentration found in the present experiment in goats are similar to those described in cows after single intramuscular injection Fig.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *