150110

শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় নিহতদের প্রতি রিসালাতুল ইনসানিয়াহ’র শোক

আওয়ার ইসলাম: বিশ্বজুড়ে সন্ত্রাসীরা ধর্মীয় উপাসনাগুলো তাদের হামলার লক্ষ্যস্থল নির্ধারণ করাকে একটি অসনিসংকেত হিসেবে মন্তব্য করেছেন উচ্চতর শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান শায়খ আবুল হাসান আলী নদভী ইসলামিক রিসার্চ সেন্টার, ঢাকা’র পরিচালক ও আধ্যাত্মিক সংগঠন রিসালাতুল ইনসানিয়াহ বাংলাদেশের আমীর মাওলানা শহীদুল ইসলাম ফারুকী।

তিনি বলেন, শ্রীলঙ্কায় নির্দয়ভাবে সিরিজ বোমা হামলা করে সাধারণ মানুষদের এভাবে হত্যা করা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। যারা দেশে দেশে ত্রাস সৃষ্টি করে, যারা সমাজের শান্তি বিনষ্ট করে তারা কখনোই কোনো ধর্ম পরিচয় বহন করতে পারে না। এরা কেবলই সন্ত্রাসী। আমি শ্রীলঙ্কায় ঘটে যাওয়া সিরিজ বোমা হামলায় নিহতদের প্রতি গভীর শোক জানাই এবং নিহতদের পরিবারের প্রতি জানাই আন্তরিক সমবেদনা।

গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় মালয়েশিয়ার রিসার্চ ফেলো মাওলানা শহীদুল ইসলাম ফারুকী বলেন, একটা সন্ত্রাসী গোষ্ঠী বিশ্বজুড়েই অশান্তি লাগিয়ে রাখার কাজে তৎপর। তাদের মূলোৎপাটন করতে হবে। বিশ্বকে শান্ত ও সুন্দর করতেই সন্ত্রাসীদের সঙ্গে কোনো আপস নয়। তাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

তিনি বলেন, সন্ত্রাসবাদের কোনো আইডেন্টিটি নেই। সন্ত্রাসীর কোনও ধর্ম নেই, জাতি নেই, দেশ নেই, বর্ণ নেই। মুসলমান হোক, ইহুদি হোক, বৌদ্ধ হোক, খ্রিস্টান হোক, হিন্দু হোক, সাদা হোক, কালো হোক; সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সত্যিকারের জিরো টলারেন্স নিয়ে যুদ্ধে নামতে হবে।

প্রসঙ্গত, শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোসহ দেশটির অন্তত ছয়টি স্থানে তিনটি গির্জা ও তিনটি হোটেলে ভয়াবহ সিরিজ বোমা হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২৯০ জনে দাঁড়িয়েছে। হামলায় আহত হয়েছেন আরও ৪৫০ জন। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

দেশটির স্থানীয় সময় রোববার সকাল ৮ টা ৪৫ নাগাদ খ্রিস্টানদের ধর্মীয় উৎসব ইস্টার সানডে উদযাপনকালে কোচকিকাদে, কাতুয়াপিটিয়া ও বাট্টিকালোয়া নামক স্থানের তিনটি গির্জায় বোমা বিস্ফোরণ ঘটে। প্রায় একই সময়ে দেশটির রাজধানীর অভিজাত তিনটি হোটেল সাংগ্রি লা, দ্য কিন্নামোন এবং কিংসবারিতে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

আরএম/

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *