150514

৭ কলেজের সমস্যা সমাধানের ঢাবি কর্তৃপক্ষের আশ্বাস

আওয়ার ইসলাম: কিছু জটিলতার কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত সাত সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীদের শিক্ষা কার্যক্রমে ‘অসুবিধা’ সৃষ্টি হওয়ার কথা স্বীকার করে সমাধানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

আন্দোলনরত সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের দাবি-দাওয়া নিয়ে তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসতে যাচ্ছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মুহা. আখতারুজ্জামান।

পরীক্ষার ফলাফল পুনর্মূল্যায়নসহ পাঁচ দফা দাবিতে আন্দোলনরত এই শিক্ষার্থীরা দ্বিতীয় দিনের মতো বুধবার রাজধানীর নীলক্ষেত মোড় অবরোধ করেছে। ফলে রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক পয়েন্ট আজিমপুর হয়ে বিভিন্ন রুটে যান চলাচলে অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়। পরে উপাচার্যের সঙ্গে বৈঠকের সিদ্ধান্ত হওয়ার পর বেলা দুইটার দিকে রাস্তা ছেড়ে দেয় আন্দোলনকারীরা।

বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, শিক্ষার্থীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে জানানো যাচ্ছে, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যে সকল শিক্ষার্থী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধিভুক্ত হয়েছে, তাদের কিছু জটিলতার কারণে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনায় সাময়িক অসুবিধা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ইতোমধ্যে তাদের এসব সমস্যা সমাধান করার উদ্যোগ নিয়েছে।

সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৯০ কার্যদিবসের মধ্যে সকল বিষয়ের ফলাফল প্রকাশ করার বিষয়ে ইতোমধ্যে সিদ্ধান্ত হয়েছে। যেসব বিষয়ে বেশি সংখ্যক শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়েছে, তাদের আবেদনের ভিত্তিতে পুনর্মূল্যায়নের ব্যবস্থাও নেয়া হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, সাত কলেজের অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ইতোমধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনিক ভবনে স্বতন্ত্র সেল গঠন করা হয়েছে। ভবিষ্যতে সাত কলেজের জন্য স্বতন্ত্র নতুন ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। অধিভুক্ত সাত কলেজের সেশনজট নিরসনকল্পে ‘ক্র্যাশ প্রোগ্রাম’ নেয়ার বিষয়ে কলেজ অধ্যক্ষদের সঙ্গে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তাদের জন্য অ্যাকাডেমিক ক্যালেন্ডার তৈরির কাজও প্রক্রিয়াধীন।

উপাচার্য আগামী ২৮ এপ্রিল (রোববার) সাত কলেজের অধ্যক্ষের সঙ্গে এসব বিষয়ে বৈঠক করবেন। বৈঠকে শিক্ষার্থীদের সমস্যার সমাধানে করণীয় নির্ধারণ করা হবে। এছাড়াও ‘জনভোগান্তি নিরসনে’ শিক্ষার্থীদের নিজ নিজ ক্যাম্পাসে থাকার জন্য আহ্বান জানানো হয় সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে।

-এএ

ad

পাঠকের মতামত

Comments are closed.