160977

রিফাত হত্যা মামলায় আরও দু’জন গ্রেফতার

আওয়ার ইসলাম: বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যা মামলার আসামি রাব্বি আকন ও রাতুল শিকদার জয়কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রাব্বি আকন বরগুনা সদর উপজেলার কেওরাবুনিয়া এলাকার মুহা. আবুল কালাম আজাদের ছেলে।

বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৯টার দিকে রাব্বিকে গ্রেফতারের কথা জানান পুলিশ। তবে তাকে কোথা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে তদন্তের স্বার্থে তা জানায়নি।

বৃহস্পতিবার রাতে বরগুনার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে রাব্বি আকনকে গ্রেফতারের কথা জানান পুলিশ সুপার মুহা. মারুফ হোসেন। তিনি বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাব্বি আকনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তবে তদন্তের স্বার্থে তাকে গ্রেফতারের সময় ও স্থান আমরা জানাচ্ছি না।

এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে বরগুনা সদর থানার ওসি আবির মোহাম্মদ হোসেন বলেন, তদন্তের স্বার্থে রাতুলকে কখন ও কোথা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে তা উল্লেখ করা হয়নি। তিনি জানান, বিকালে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মোহাম্মাদ সিরাজুল ইসলাম গাজীর আদালতে রাতুলকে হাজির করে পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। আদালত তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এ বিষয়ে বরগুনা সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুহা. শাহজাহান হোসেন বলেন, আসামিদের ধরতে বরগুনাসহ সারা দেশের সম্ভাব্য স্থানে আমাদের অভিযান অব্যাহত আছে। খুব তাড়াতাড়ি বাকি আসামিদের গ্রেফতার করা হবে।

আলোচিত রিফাত হত্যা মামলার প্রধান অভিযুক্ত নয়ন বন্ড বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। এছাড়া এ মামলার এজহারভুক্ত ছয়জন এবং সন্দেহভাজন সাতজন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এর আগে ৯ জুলাই সন্দেহভাজন অভিযুক্ত রাফিউল ইসলাম রাব্বি রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

১ জুলাই আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় অভিযুক্ত ১১ নম্বর আসামি মুহা. অলিউল্লাহ অলি ও ভিডিও ফুটেজ দেখে শনাক্ত করা তানভীর একই আদালতে রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

৪ জুলাই রিফাত হত্যা মামলার চার নম্বর আসামি চন্দন ও ৯ নম্বর আসামি মুহাম্মদ হাসানও একই আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। ৫ জুলাই একই আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডের ফুটেজ দেখে শনাক্ত হওয়া ও তদন্তে বেরিয়ে আসা অভিযুক্ত মুহাম্মদ সাগর ও নাজমুল হাসান।

ইতোমধ্যে রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় সাতদিন রিমান্ড শেষে পুলিশের দায়ের করা অস্ত্র মামলায় সাতদিনের রিমান্ডে রয়েছেন রিফাত ফরাজী। এছাড়াও এ মামলার ১২ নম্বর আসামি টিকটক হৃদয় ও সন্দেহভাজন অভিযুক্ত আরিয়ান শ্রাবণ পাঁচদিনের এবং রাতুল সিকদার ও সাইমুন তিনদিনের রিমান্ডে রয়েছেন।

-এএ

ad

পাঠকের মতামত

Comments are closed.