178369

ভারতে প্রায় ২ হাজার শহরে জমিয়তের প্রতিবাদ-বিক্ষোভ

আওয়ার ইসলাম: জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ (জেএইচ) শুক্রবার রাজ্যসভায় পাস হওয়া নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরুদ্ধে ভারতজুড়ে প্রায় দুই হাজার শহরে বিক্ষোভ করেছে। সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মাহমুদ মাদানী নয়াদিল্লিতে একটি প্রতিবাদ বিক্ষোভের নেতৃত্ব দেন।

যেসব শহরগুলি বিতর্কিত আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়েছিল তার মধ্যে দিল্লি, মুম্বাই, দেওবন্দ, জয়পুর বেঙ্গালুরু, হায়দরাবাদ, বিজয়ওয়াদা, নলগুন্ডা, নাগপুর, কলকাতা, ভোপাল, আহমেদাবাদ, পুনে, সুরত, চণ্ডীগড়, বারানসি, কানপুর, লখনৌ, গোয়ালিয়র এবং অন্যান্য অন্তর্ভুক্ত ছিল।

বিক্ষোভকারীরা প্রতিবাদ মিছিলে বিজেপি বিরোধী স্লোগান দিচ্ছিলেন এবং “সংবিধান সংরক্ষণ করুন, সিএবি প্রত্যাহার করুন, সিএবি মানুষকে ধর্মীয় ভিত্তিতে বিভক্ত করবে” এই জাতীয় স্লোগানসহ প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করছিল।

সিএবির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ

জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মাহমুদ মাদানী নয়াদিল্লিতে বিক্ষোভকারীদের উদ্দেশে বলেছেন, “নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনটি ভারতের সংবিধানের পরিপন্থী এবং ধর্মের ভিত্তিতে বৈষম্যমূলক আচরণ করছে।”

তিনি বলেন, “স্বাধীনতা আন্দোলন এবং আমাদের সংবিধানে অন্তর্নিহিত ভারতের ধারণাটি হ’ল এমন একটি দেশ যা সমস্ত ধর্মের মানুষকে সমানভাবে তাদের অধিকার প্রদান করবে। নাগরিকত্ব সম্পর্কিত বিল সংবিধানের মূল কাঠামোর সাথে সঙ্গতিপূর্ণ হবে না।”

একই সাথে তিনি মুসলিম যুবকদের শান্তি বজায় রাখতে অনুরোধ করেছেন। “এটি আমাদের কষ্টের অস্থায়ী পর্ব এবং খুব শীঘ্রই মুসলিম সম্প্রদায় এ থেকে মুক্তি পাবে। মর্যাদাপূর্ণ জীবনযাপন করতে, সাহসের পাশাপাশি আমাদের ধৈর্য প্রদর্শন করতে হবে।” মাহমুদ মাদানী বলছিলেন।

সিএবির উপর প্রতিবাদ

অনেক শহরে সিএবি বিলের বিরোধিতা করে নরেন্দ্র মোদীর কুশ পুতুল দাহ করেন জমিয়তের নেতাকর্মীরা। বিভিন্ন রোডে ক্যাব বিরোধী কয়েক হাজার জমিয়াত সমর্থকরা বিক্ষোভ সমাবেশ করে এবং দীর্ঘক্ষণ রোড অবরোধ করে রাখেন। জমিয়তের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সি এ বি বিল ও এনআরসি নিয়ে আগামী দিনে তারা দেশজুড়ে বৃহত্তর আন্দোলনে নামবে।

এ দিন আন্দোলনকারী জমিয়তের এক সদস্য বলেন, “আজ আমরা হিন্দু ও মুসলিম উভয় সম্প্রদায়ের মানুষ এক হয়ে সিএবি বিলের বিরোধিতায় পথে নেমেছি। কারণ, যে সিএবি বিল পাশ করা হয়েছে তাতে নির্দিষ্ট করে এক সম্প্রদায়ের মানুষদের উদ্দেশ্যে এই বিল আনা হচ্ছে।”

“তাই আমরা হিন্দু ও মুসলিম সবাই এক হয়ে এর বিরোধিতা করছি। মোদীজি ও অমিত শাহকে এই বিলের পরিপন্থী অন্য বিল আনতে হবে। না হলে আমরা সারা দেশে সব সম্প্রদায়ের মানুষ এক হয়ে আরও বৃহত্তর আন্দোলনে নামবো।”

ভারতজুড়ে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ শান্তিপূর্ণ ছিল এবং কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই শেষ হয়েছে।

– উম্মিদ ডটকম, ফিকরো খবর, তাসির ডটকম অবলম্বনে রকিব মুহাম্মদ 

আরএম/

ad

পাঠকের মতামত

Comments are closed.