182602

সরকারি ব্যবস্থাপনায় নিরাপদে হজ পালন করুন: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

আওয়ার ইসলাম: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এডভোকেট শেখ মো. আব্দুল্লাহ বলেছেন, সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে গমণ করলে হজযাত্রীগণ সহজ এবং সুন্দরভাবে হজ করতে পারেন। সকল ধরণের প্রতারনা এবং বিড়ম্বনা পরিহার করে নিরাপদে হজ পালন করা যায়।এ বিষয়ে সারা দেশের ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর কর্মকর্তা- কর্মচারী সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে হজযাত্রীদের সঠিক তথ্য দিয়ে সাহায্য করতে হবে।

আজ শনিবার বেলা ১০ টায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন, গোপালগঞ্জ জেলা কার্যালয় আয়োজিত মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম প্রকল্পের শিক্ষক ও ওলামা মাশায়েখগণের সঙ্গে মতবিনিময় সভা এবং মসজিদ পাঠাগার প্রকল্পের আওতায় আলমিরা ও যাকাতের অর্থায়নে সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এডভোকেট শেখ মো. আব্দুল্লাহ এসব কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, হজযাত্রীগণকে অবশ্যই সরকার প্রদত্ত নিয়ম কানুন জেনে হজে গমণ করতে হবে।হজ গমণে যে কোন ধরনের মধ্যস্বত্তভোগী এবং দালাল পরিহার করতে হবে। এ ক্ষেত্রে সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে গমন সবচেয়ে উত্তম।

এ সময় তিনি বলেন, বাংলাদেশের হজযাত্রীদের হজে গমনের বিষয়য়ে ক্রম-বর্ধমান চাহিদার কথা চিন্তা করে এ বছরের হজ চুক্তিতে দশ হাজার হজযাত্রীর কোটা বৃদ্ধি করা হয়েছে। এ বছর বাংলাদেশ থেকে সরকারি ব্যবস্থাপনার সতের হাজার একশত আটান্নব্বই জন সহ সর্বমোট ১ লক্ষ ৩৭ হাজার ১ শত ৯৮ জন হজযাত্রী হজে গমণ করতে পারবেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় একটি করে সর্বমোট ৫৬০ মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র বিনির্মাণের মাধ্যমে দেশের সকল মানুষের কাছে ইসলামের শান্তির বাণী সঠিকভাবে পৌঁছে দিতে চান। সারা দেশে দ্রুত গতিতে এসব মসজিদ নির্মাণের কাজ এগিয়ে চলছে।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র সমূহ ধর্মীয় কার্যক্রমের পাশাপাশি নানাবিধ সামাজিক ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে সব মসজিদ কার্যকরী প্ল্যাটফর্ম হিসেবে অবদান রাখবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ, মাদকাসক্তি, নারীর প্রতি সহিংসতা, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ ইত্যাদি বিষয়ে মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধিতে এ দেশের আলেম সমাজ গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রেখে চলছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নত বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার অভিযাত্রায় এ দেশের আলেম সমাজ ভবিষ্যতে ও গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখবে।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা আলেম সমাজের উন্নয়ন এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে ধর্মীয় ও নৈতিকতা শিক্ষা প্রদানের কথা চিন্তা করে মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা প্রকল্প চালু করেছেন অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের জন্যও স্ব স্ব উপাসনালয় কেন্দ্রিক প্রাক প্রাথমিক শিক্ষা প্রকল্প চালু করেছেন।

গোপালগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক, কাজী মোঃ শহিদুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরও বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মোঃ আসলাম হোসেন খান, ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর পরিচালক আনিছুজ্জামান শিকদার, উপ পরিচালক ইসলামিক ফাউন্ডেশন, গোপালগঞ্জ জেলার শাখা মোঃ আবু অবায়দা মাসুদ – উল- হক, গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ মোঃ রুহুল আমিন, ওলামা মাশায়েখ গোপালগঞ্জ জেলার সভাপতি মাওলানা আবুল কালাম প্রমুখ।

সভায় গোপালগঞ্জ, বরিশাল, ঝালকাঠি, মাদারীপুর, যশোর, নড়াইল থেকে ইসলামিক ফাউন্ডেশন এর কর্মকর্তাগণ এবং বিপুল সংখ্যক ওলামা মাশায়েখ অংশ গ্রহন করেন। অনুষ্ঠানে যাকাতের অর্থায়ন থেকে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ব্যক্তির মাঝে সেলাই মেশিন এবং মসজিদ পাঠাগারের আলমিরা বিতরণ করা হয়।

-এটি

ad

পাঠকের মতামত

Comments are closed.