182805

প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষ্যে দারুল উলুম দেওবন্দে দোয়া অনুষ্ঠান

আবদুল্লাহ তামিম।।

ভারতের ঐতিহাসিক দীনি বিদ্যাপীঠ দারুল উলুম দেওবন্দে দেশটির প্রজাতন্ত্র দিবস উপলক্ষ্যে দোয়া অনুষ্ঠান ও সভার আয়োজন করা হয়েছে। সভায় বক্তব্য রাখেন দারুল উলুম দেওবন্দের মুহতামিম মুফতি আবুল কাসেম নোমানিসহ মাদরাসার শিক্ষকগণ।

দেওবন্দ মিডিয়া জানায়, প্রজাতন্ত্র দিবসের আগের দিন শনিবার মুফতি আবুল কাসেম নোমানি স্বাক্ষরিত এক জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে দারুল উলূম দেওবন্দে একটি অনুষ্ঠানের ঘোষণা দেয়া হয়। সে ঘোষণা অনুযায়ী রোববার এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে দেওবন্দের মুহতামিম বলেন, নাগরিক হিসেবে আজ আমাদের কাছে একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন উপস্থিত হয়েছে। এটা অত্যন্ত আনন্দের বিষয়। আর আমরা এ দেশের নাগরিক। আমাদের দেশ আমাদের প্রাণ। আমরা দেশের সংবিধান মানি। আমরা দেশকে ভালোবাসি। আর সে জন্যই আমাদেরকে দেশের আইন মানতে হবে, আইনকে সম্মান করতে হবে।

আজ আমাদের দেশে যতই বিরোধপূর্ণ আইন চালু হোক, মনে রাখতে হবে এটা আমাদের দেশ। আমাদেরই এটাকে রক্ষা করতে হবে। যতদিন পর্যন্ত সংবিধান অনুযায়ী দেশ চলবে ততদিন কোনো সমস্যা হবে না। আর যখনই এর বিরুদ্ধে গিয়ে নতুন কোনো আইন করতে যাবে তখনই সমস্যা সৃষ্টি হবে। আমাদের দেশকে আল্লাহ তায়ালা রক্ষা করুন। এটা আমাদের দোয়া করতে হবে। আর যারা নানান ধরনের আইন চালু করার চেষ্টা করছে আল্লাহ তায়ালা তাদের বুঝ দান করুন। বক্তব্য শেষে তিনি দেশ জাতি ও জনগণের জন্য দোয়া করেন।

উল্লেখ্য, ভারতের গণতন্ত্রে উল্লেখযোগ্য দিন এই প্রজাতন্ত্র দিবস। ১৯৪৭ সালের ১৫ আগস্ট স্বাধীনতার স্বাদ গ্রহণের পর ১৯৪৯ সালের ৯ নভেম্বর গণ পরিষদের প্রথম অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। অধিবেশনে যোগ দিয়েছিলেন ২০৭ জন সদস্য। সভার নেতৃত্ব দিয়েছিলেন ‘ভারতীয় সংবিধানের রূপকার’ ভীম রাও আম্বেদকর।

অবশেষে ১৯৪৯ এর ২৬ নভেম্বর গৃহীত হয় ভারতীয় সংবিধান। কার্যকর হয় আরও মাস দুয়েক পর, অর্থাৎ ২৬ জানুয়ারি, ১৯৫০। বর্তমানে যথাযোগ্য মর্যাদায় দিল্লির রাজপথে পালন করা হয় প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠান। দেশের গৌরবময় ইতিহাস ও সংস্কৃতিকে শ্রদ্ধা জানাতে কুচকাওয়াজও প্রদর্শন করা হয় সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে। ৭০ তম প্রজাতন্ত্র দিবসে রইল কিছু শুভেচ্ছাবার্তা। সূত্র: দেওবন্দ মিডিয়া

-এটি

ad