186914

‘পর্দাসহ বিশ্ব ভ্রমণ করুন, মানুষ আপনাকে সম্মান করবেই’

সাঈয়েদা হাবিবা

একজন মুসলিম হিসাবে আমি অনেক গর্বিত হই যখন দেখি মুসলিমরা তাদের পরিচয় হিসাবে এই সুন্দর ধর্ম বাস্তবায়ন করছে বোরকা পরিধান করে। এটা আমারও পরিচয়ের অংশ। এ পর্দা বা বোরকা আমাকে সবার সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়, আমি কে?

পর্দা শুধু আমার মাথার উপর একটুকরো কাপড়ই নয় বরং এটা হচ্ছে সেই কাপড় যা আমাকে আত্মবিশ্বাসী করে তোলে, সম্মানিত করে। এই পর্দা আমাকে সেই পথের নির্দেশ করে যে পথে আমি চলতে চাই। এই কথাগুলো রাহনুমা ইনসানের। তিনি তার ভ্রমণের আরো কিছু অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেছেন, তার দেখা বিশ্ব নিয়ে কিছু বলবো আজ।

আমি যখন বিশ্ব ভ্রমণ শুরু করি তখন অনেকে আমাকে প্রশ্ন করতো-হিজাব পরে বিভিন্ন জায়গাতে ভ্রমণ করেন কিভাবে? হিজাব পরে ভ্রমণ করার কারণে আপনি বৈষম্যের শিকার হননা? তখন আমি বুঝতে পারলাম অনেক মেয়েই বাইরে বের হওয়ার বিষয়ে চিন্তিত থাকে এই ভেবে যে, তারা হয়তো মানুষের কটু কথা শুনবে অথবা হিজাবের কারণে তাদেরকে অপমান করা হবে।

কিন্তু মূল বিষয় হচ্ছে, সবচেয়ে বেশি নিরাপদ এই হিজাব পড়েই যা অন্য কোনো কিছুতেই সম্ভব নয়। বিশ্বাস করুন, একজন মুসলিম হিসাবে আপনার প্রধান দায়িত্ব হচ্ছে হিজাব পরিধান করা, যখন আপনি একজন মুসলিম এবং হিজাব পরিধান করেছেন, তখন অন্যদের কাছে আপনার আলাদা করে পরিচয় দিতে হয় না। আপনাকে অনেকে রক্ষণশীল হিসাবে মন্তব্য করতে পারে, কিন্তু ভেবে দেখেছেন কি এই হিজাব আপনার জন্য কতটা সম্মানের বিষয়?

ভ্রমাণের জন্য অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে টাকা। আমরা বাংলাদেশিরা প্রায়ই বলে থাকি যে, টাকার জন্য ইউরোপ, আমেরিকা ভ্রমণ করতে পারি না। কিন্তু আমরা এখনো আমাদের দেশের সব প্রাকৃতিক সৌন্দর্য দেখে শেষ করতে পারিনি। এটাই বাস্তবতা। অনেক বিদেশীরা সারা বছর জুড়ে টাকা জমায় শুধু আমাদের কক্সবাজার, সুন্দরবন, সেন্টমার্টিন ভ্রমণ করবে বলে। আমাদের টাকার অজুহাত শুধুই মানসিক দৈন্যতা।

সারা বছরে কয়টা পারিবারিক ভ্রমণ করতে পেরেছি আমরা? কখনো কি নিজেকে এমন প্রশ্ন করেছেন? মূলত ভ্রমণ হচ্ছে নতুন একটা অভিজ্ঞতা। এটা হতে পারে বাড়ির পাশেই পায়ে হাটা কোনো দূরত্ব। এই জায়গা পরিদর্শন করার মাধ্যমে আপনি একজন ভ্রমণকারী হতে পারেন।

অনেকে ভ্রমণে যায় শুধু ছবি তোলার জন্য। হতে পারে তিনি একজন ভালো ফটোগ্রাফার কিন্তু সামাজিক মাধ্যমে পরিচিতির মাধ্যম, কিন্তু ভালো ভ্রমণের জন্য এটা একদমই অপ্রয়োজনীয়। আমি মনে করি, সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম ফেসবুকে যার একটাও ভ্রমণের ছবি নেই, হয়তো সে অনেক ভালো ভ্রমণকারী। আপনার ভ্রমণ সম্পর্কে আপনি আপনার ডায়েরীতে লিখতে ও সংরক্ষণ করতে পারেন উত্তরসূরীদের জন্য।

আপনি বাচ্চাদের জন্য কত ধরণের পোশাক, জুতা, খেলনা কিনে থাকেন কিন্তু আমার পরামর্শ হচ্ছে- এরচেয়ে ভালো হয় আপনি তাদেরকে কোথাও ভ্রমণে নিয়ে যান। সে বড় হয়ে কখনো এটা বলবে না যে, আমার বাবা-মা আমাকে নতুন একটা পোশাক কিনে দিয়েছেন বছরের ঐসময়। কিন্তু কোথাও ভ্রমণ করানো হলে সেটা স্মৃতিচারণ করতে বাধ্য হবে- তখন সে বলবে, আমার বাবা-মা আমাকে অমুক অমুক জায়গায় ভ্রমণ করিয়েছেন। সত্যি কথা বলতে আমি এখনো আমার ছোটবেলার ভ্রমণগুলো মধুর স্মৃতি আমার কাছে।

একদিন একজন আমাকে লিখেছেন যে, হিজাব নিয়ে কোথাও ভ্রমণে তার জড়তার কথা। সে বলেছে, আমার হিজাব পড়ে ভ্রমণ করা দেখে তিনি উদ্বুদ্ধ হয়েছেন। আমাদের উচিত সুন্দর অভিজ্ঞতাগুলো তুলে ধরা। আমাদের মনে রাখতে হবে আমরা নিজেরাই নিজেদের জন্য সমস্যা যখন অন্যের সাথে আমরা নিজেদের তুলনা করি।

অনুবাদক: শিক্ষিকা, ফেইথ ইন্টারন্যাশনাল একাডেমি, গুলশান, ঢাকা

-এটি

ad