রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪ ।। ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ ।। ৮ মহর্‌রম ১৪৪৬

শিরোনাম :
‘কোটাবিরোধী আন্দোলনকে ভিন্নখাতে প্রভাবিত করার সুযোগ নেই’ অন্যায় যারা করবে তাদের আমরা ধরবোই: প্রধানমন্ত্রী গাজায় গণহত্যার জন্য ইসরায়েল ও যুক্তরাষ্ট্র দায়ী: মাহমুদ আব্বাস কুড়িগ্রামে বন্যার্ত ৬০০ পরিবারকে ত্রাণ সহায়তা দিলো হাফেজ্জী চ্যারিটেবল প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন আজ ডান কানে গুলিবিদ্ধ ট্রাম্প, মারা গেছেন বন্দুকধারী ঘুম ভাঙ্গার পর যে আমল করলে দোয়া কবুল হয় বসনিয়ায় সার্বিয়ান ধ্বংসপ্রাপ্ত সাড়ে চারশো বছর আগের মসজিদ পুনঃরুদ্ধার পুনঃনিরীক্ষণ আবেদনে কৃতী শিক্ষার্থীদের ফি ফেরত দিচ্ছে বেফাক সমাজের বিভিন্ন শ্রেণীকে শিক্ষিত করতে মাদরাসাগুলোর ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ : মাহমুদ মাদানি

পবিত্র হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু

নিউজ ডেস্ক
নিউজ ডেস্ক
শেয়ার

‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক, লাব্বাইকা লা শারিকা লাকা লাব্বাইক, ইন্নাল হামদা ওয়ান নিমাতা লাকা ওয়াল মুলক, লা শারিকা লাক।’ অর্থাৎ আমি হাজির, হে আল্লাহ আমি হাজির, তোমার কোনো অংশীদার নেই। আমি হাজির। সব প্রশংসা ও অনুগ্রহ শুধুই তোমার। সব রাজত্ব তোমার। হাজিদের ধ্বনিতে এমন জিকিরে মুখর হবে মিনা, আরাফাতের ময়দান ও মুজদালিফা।

এরই মধ্যে শুরু হয়েছে পবিত্র হজের আনুষ্ঠানিকতা। যা চলবে আগামী পাঁচ দিন। আরবি বর্ষপঞ্জিকার শেষ মাস জিলহজের ৮ তারিখ হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এরপর ৯ জিলহজে অবস্থান করতে হয় আরাফাতের ময়দানে। আর ১০ জিলহজে পশু কোরবানি করেন হাজিরা। পশু কোরবানি শেষে আরও দুদিন থাকে হজের বিভিন্ন আনুষ্ঠানিকতা। হজ সম্পন্ন করতে সব মিলিয়ে পাঁচদিন সময় লাগে। সূত্র: আলজাজিরা।

এ বছর সারা বিশ্ব থেকে প্রায় ২০ লাখ মানুষ হজ পালন করবেন। আর বাংলাদেশ থেকে হজ পালন করবেন ৮৫ হাজার ২৫৭ জন।

শুরুতে মিনায় অবস্থান করা সুন্নত। তাই হাজিরা সেখানে অবস্থান করবেন। এরপর আরাফার ময়দান, মুজদালিফা, মিনায় কঙ্কর নিক্ষেপ, মাথা মুণ্ডন, সাফা-মারওয়া সায়ী, তাওয়াফ, দমে শোকর আদায় করবেন।

গতকাল এশার নামাজের পর মক্কার নিজ নিজ আবাসন থেকে ইহরামের কাপড় পরে মিনায় উপস্থিত হাজিরা। মিনায় ফজর থেকে শুরু করে এশা পর্যন্ত অর্থাৎ পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করবেন হাজিরা।

এরপর ৯ জিলহজ সকাল থেকে আরাফাতের ময়দানে উপস্থিত হতে শুরু করবেন হাজিরা। এদিন দুপুর থেকে সূর্যাস্তের আগ পর্যন্ত আরাফার ময়দানে অবস্থান করা ফরজ। মূলত এদিনকেই হজের দিন বলা হয়। দিনটি ইয়াওমুল আরাফা হিসাবেও পরিচিত। এরপর হাজিরা আরাফার ময়দান থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে মুজদালিফায় রাত যাপন এবং পাথর সংগ্রহ করবেন।

হাজিরা ১০ জিলহজ ফজরের নামাজ আদায় করে মুজদালিফা থেকে আবার মিনায় ফিরে যাবেন। সেখানে তারা বড় শয়তানকে পাথর নিক্ষেপ, কোরবানি ও মাথা মুণ্ডন বা চুল ছেঁটে মক্কায় পবিত্র কাবা শরিফ তাওয়াফ ও সায়ী করবেন। এরপর হাজিরা আবার মিনায় ফিরে ১১ এবং ১২ জিলহজ অবস্থান করবেন। এ সময় প্রতিদিন তিনটি শয়তানকে পাথর নিক্ষেপ করবেন তারা।

এবার আরাফাতের ময়দানে হজের খুতবা প্রদান করবেন মসজিদুল হারামের জনপ্রিয় ইমাম ও খতিব শায়খ ড. মাহের বিন হামাদ বিন মুয়াক্বল আল মুয়াইকিলি। একইসঙ্গে তিনি মসজিদে নাবাবিতে নামাজও পড়াবেন।

কেএল/


সম্পর্কিত খবর


সর্বশেষ সংবাদ