রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪ ।। ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ ।। ৮ মহর্‌রম ১৪৪৬

শিরোনাম :
‘কোটাবিরোধী আন্দোলনকে ভিন্নখাতে প্রভাবিত করার সুযোগ নেই’ অন্যায় যারা করবে তাদের আমরা ধরবোই: প্রধানমন্ত্রী গাজায় গণহত্যার জন্য ইসরায়েল ও যুক্তরাষ্ট্র দায়ী: মাহমুদ আব্বাস কুড়িগ্রামে বন্যার্ত ৬০০ পরিবারকে ত্রাণ সহায়তা দিলো হাফেজ্জী চ্যারিটেবল প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন আজ ডান কানে গুলিবিদ্ধ ট্রাম্প, মারা গেছেন বন্দুকধারী ঘুম ভাঙ্গার পর যে আমল করলে দোয়া কবুল হয় বসনিয়ায় সার্বিয়ান ধ্বংসপ্রাপ্ত সাড়ে চারশো বছর আগের মসজিদ পুনঃরুদ্ধার পুনঃনিরীক্ষণ আবেদনে কৃতী শিক্ষার্থীদের ফি ফেরত দিচ্ছে বেফাক সমাজের বিভিন্ন শ্রেণীকে শিক্ষিত করতে মাদরাসাগুলোর ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ : মাহমুদ মাদানি

জুমা আদায়কারীর বিশেষ সম্মান

নিউজ ডেস্ক
নিউজ ডেস্ক
শেয়ার
ফাইল ছবি

জুমাবার মুসলমানদের কাছে একটি কাঙ্ক্ষিত দিন। এই দিনকে সাপ্তাহিক ঈদ বলা হয়েছে হাদিসে। সৃষ্টিজগতের শুরু থেকে দিনটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। মানব ইতিহাসে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ঘটেছে জুমার দিন। জুমা নামে পবিত্র কুরআনে একটি স্বতন্ত্র সুরা আছে। সপ্তাহের বাকি ছয় দিনের তুলনায় অধিক মর্যাদাসম্পন্ন দিনটির আমলও অনেক ফজিলতপূর্ণ।

এই দিনের বিশেষ কিছু আমল ও ফজিলত রয়েছে। আমলগুলোর প্রতিদান হিসেবে আল্লাহ তাআলা জুমা আদায়কারীকে বিপুল সওয়াব ও বিশেষ সম্মানে ভূষিত করেন। জুমায় উপস্থিত হওয়া থেকে শুরু করে প্রত্যেকটি আমলই মুমিনের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। মহান আল্লাহ জুমার নামাজ আদায়কারীকে বিশেষ নূর দান করবেন। কেয়ামতের দিন জুমার নামাজ আদায়রে কারণে তাদের চেহারা থেকে বিশেষ নূরের ঝলক প্রতিভাত হবে। আল্লাহর রাসুল সা. বলেন—

‘আল্লাহ তায়ালা কেয়ামতের দিন পৃথিবীর দিবসগুলোকে নিজ অবস্থায় উত্থিত করবেন। তবে জুমার দিনকে আলোকোজ্জ্বল ও দীপ্তিমান করে উত্থিত করবেন। জুমা আদায়কারীরা আলো দ্বারা বেষ্টিত থাকবে, যেমন নতুন বর বেষ্টিত থাকে। এটি তাকে প্রিয় ব্যক্তির কাছে নিয়ে যায়। তারা আলোবেষ্টিত থাকবে এবং সেই আলোতে চলবে। তাদের রং হবে বরফের মতো উজ্জ্বল ও সুগন্ধি হবে কর্পূরের পর্বত থেকে সঞ্চিত মিশকের (বিশেষ সুরভি) মতো। তাদের দিকে জ্বিন ও মানুষ তাকাতে থাকবে। তারা আনন্দে দৃষ্টি ফেরাতে না ফেরাতেই জান্নাতে প্রবেশ করবে। তাদের সঙ্গে একনিষ্ঠ সওয়াব প্রত্যাশী মুয়াজ্জিন ছাড়া কেউ মিশতে পারবে না।’ (মুসতাদরাক হাকেম: ১০২৭; সহিহ ইবনে খুজায়মা: ১৭৩০)

উল্লেখ্য, জুমার দিন পরিচ্ছন্ন হওয়া, সাধ্য থাকলে নতুন পাঞ্জাবি পরা উত্তম। এছাড়া খুশবু নেওয়া, হাত-পায়ের নখ কাটা, দ্রুত মসজিদে যাওয়ার গুরুত্ব অনেক। জুমার দিন সুরা কাহাফ ও বেশি বেশি দরুদ পড়ার বিশেষ গুরুত্ব ও অসংখ্য ফজিলত বর্ণিত হয়েছে হাদিসে। 

আল্লাহ তায়ালা মুসলিম উম্মাহকে সঠিকভাবে জুমার নামাজ আদায়ের তাওফিক দান করুন। যাবতীয় গুনাহ ও পাপ মার্জনা করুন। হাশরের মাঠে প্রতিশ্রুত মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করুন। আমিন।

এনএ/


সম্পর্কিত খবর


সর্বশেষ সংবাদ