সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪ ।। ৯ বৈশাখ ১৪৩১ ।। ১৩ শাওয়াল ১৪৪৫


বন্ধ হবে না দারুল উলুম দেওবন্দের ফতোয়া ওয়েবসাইট: মজলিসে শুরার সিদ্ধান্ত


নিউজ ডেস্ক

নিউজ ডেস্ক
শেয়ার
উপমহাদেশের ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দারুল উলুম দেওবন্দ, ভারত। ছবি: ইন্টারনেট

|| হাসান আল মাহমুদ ||

উপমহাদেশের ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দ’র অনলাইনে ফতোয়া পরিষেবা এবং ফতোয়া বিষয়ক ওয়েবসাইট বন্ধ হবে না মর্মে সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটির মজলিসে শূরার বৈঠক।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম মিল্লাত টাইমসের বরাতে জানা যায়, ‘দারুল উলূম দেওবন্দের শুরা বৈঠক বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়ে শেষ হয়েছে। দারুল উলূম দেওবন্দের পক্ষ থেকে অনলাইন ফতোয়া বিতরণের ব্যবস্থা অব্যাহত থাকবে বলে শুরা সদস্যরা স্পষ্ট জানিয়েছেন’।

একই সাথে দারুল উলূম দেওবন্দের বিরুদ্ধে এনসিপিসিআর কর্তৃক ভারত আক্রমনের বিষয়ে শুরার সদস্যরা এবং দারুল উলূম দেওবন্দের মাওলানা মুফতি আবুল কাসিম নো’মানীর ডিএম ও এসএস প্রেরিত নোটিশে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। প্রেরিত জবাবে সন্তোষ প্রকাশ করেন। পি. সাহারানপুরের কাছে তিনি স্পষ্ট করেছেন যে, প্রশাসন বা সরকার যদি এই বিষয়ে কোনও পদক্ষেপ নেয়, তবে দারুল উলূম দেওবন্দ আদালতের দ্বারস্থ হবে৷

বুধবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৯টা থেকে দারুল উলূম দেওবন্দের গেস্ট হাউসে অনুষ্ঠিত তিন দিনব্যাপী বৈঠকের দ্বিতীয় দিনে বৃহস্পতিবার বিকেলে তিনটি বৈঠকের মাধ্যমে শেষ হয়েছে।

প্রথম অধিবেশনে আলোচ্যসূচি অনুযায়ী শিক্ষা, নির্মাণ, সংগঠন ও উন্নয়ন, হিসাব বিজ্ঞানসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রের ব্যবস্থাপকগণ তাদের প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন, এতে শুরা সদস্যরা সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং প্রয়োজনীয় কিছু সংশোধনী আনেন।

সভাটি শিক্ষামূলক ছিল, তাই শুরার সদস্যরা শিক্ষা সংক্রান্ত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আলোচনা করেন এবং সর্বসম্মতিক্রমে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন, বিশেষ করে শিক্ষকদের উন্নয়ন, শিক্ষার্থীদের বৃত্তি বৃদ্ধি, পরীক্ষায় 100% উপস্থিতি এবং অসামান্য সাফল্য সহ শিক্ষার্থীদের জন্য পুরষ্কারে বিশেষ বৃদ্ধি এবং পরের বছরে আধুনিক ভর্তির অনুমোদন এবং আদর্শের বাইরে অনুপস্থিত শিক্ষার্থীদের বহিষ্কারের সতর্কতা প্রদান।

এ বিষয়ে দারুল উলুমের মুহতামিম মাওলানা মুফতি আবুল কাসেম নো’মানী বলেন, ‘শুরার এই শিক্ষা সভা যথারীতি ছিল। প্রতিষ্ঠানের নির্মাণ ও উন্নয়ন সংক্রান্ত বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। শিক্ষকদের পদোন্নতি, ছাত্র পুরস্কার বৃদ্ধিসহ অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক বিষয়ে কিছু সিদ্ধান্ত সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়।

বৈঠকে মাননীয় মাওলানা মুফতি আবুল কাসেম নো’মানি, মাওলানা সৈয়দ আরশাদ মাদানী, মাওলানা মাহমুদ মাদানী, মাওলানা মুহাম্মদ আকিল সাহারানপুরী, সংসদ সদস্য মাওলানা বদরুদ্দিন আজমল, মাওলানা আব্দুল আলিম ফারুকী, হাকীম কলিমুল্লাহ আলী গাড়ী, মাওলানা রহমতুল্লাহ কাশ্মীরী, মাওলানা রহমতুল্লাহ কাশ্মীর, মাওলানা আনোয়ার রহমান বাজনুরী, মাওলানা সৈয়দ হাবীব বান্দভী, সৈয়দ সাংহার হুসাইন মিয়াঁ দেওবন্দী, মাওলানা মাহমুদ রাজস্থানী, মুফতি শফিক ব্যাঙ্গালোর, মাওলানা আকিল গাড়ী দৌলত ও মাওলানা মালিক ইব্রাহিম প্রমুখ অংশগ্রহণ করেন। সূত্র: মিল্লাত টাইমস

হাআমা/


সম্পর্কিত খবর


সর্বশেষ সংবাদ